ঢাকা
১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

টেকনাফে ৭ কোটি ২০ লাখ টাকার ইয়াবা উদ্ধার

কক্সবাজারের টেকনাফে পৃথক অভিযানে ৭ কোটি ২০ লাখ টাকা মূল্যের ২ লাখ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এ ঘটনায় জড়িত এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে।

টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান (বিজিবিএম, পিএসসি) সোমবার বিকালে গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, রবিবার (৪এপ্রিল) রাতে টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের বিশেষ একটি টহল দল ইয়াবার চালান আসার গোপন সংবাদ পেয়ে উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীরদ্বীপ জালিয়া পাড়া এলাকা থেকে আবুল কালামের ছেলে মোঃ নুরুল আফসার (২২) কে আটক করতে সক্ষম হয়।
ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, রাতে নাফনদীতে মাছ শিকারের সময় মিয়ানমার হতে আসা ইয়াবা ভর্তি একটি নৌকা ডাঙ্গর পাড়ায় মোঃ আমির হোসেনের বসত-বাড়িতে রেখে আসে। আটক নুরুল আফসারকে নিয়ে আমির হোসেনের বসত-বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ১ লাখ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এসময় বসত-বাড়ির মালিক পালিয়ে যায়।

এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শাহপরীরদ্বীপ জালিয়া পাড়া মাঝরখিল এলাকার দু’টি ফিশিং বোটের মালিক আব্দুর রহমান প্রকাশ আব্দুরানের ইয়াবার চালান খালাস করতে যায় নুরুল আফসার। সে মাদকের চালান খালাস করে ফিরে আসার সময় বিজিবি টহলদল ধাওয়া করলে আব্দুরানের সিন্ডিকেটের অন্যান্য সদস্যরা পালিয়ে যায়।

তাছাড়া গভীর রাতে উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের খারাংখালী বিওপির বিজিবি সদস্যরা মিয়ানমার হতে ইয়াবার চালান আসার গোপন সংবাদ পেয়ে বিশেষ একটি টহল দল ক্যাম্পের দক্ষিণ-পূর্ব পাশে কৌশলী অবস্থান নেয়। কিছুক্ষণ পর ২/৩জন দুষ্কৃতকারী একটি কাঠের নৌকা থেকে নেমে বেড়িবাঁধের দিকে অগ্রসর হলে বিজিবি টহল দলের সদস্যরা তাদের চ্যালেঞ্জ করে ও ধাওয়া করে। তখন চোরাকারবারী চক্রের সদস্যরা একটি বস্তা ফেলে পার্শ্ববর্তী গ্রামের দিকে দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে টহল দল বর্ণিত স্থানে তল্লাশি অভিযান পরিচালনা করে নদীর কিনারা হতে ৩ কোটি টাকা মূল্যের এক লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। ইয়াবা পাচারকারীদের আটকের নিমিত্তে বর্ণিত এলাকা ও নদীর তীরবর্তীসহ পার্শ্ববর্তী স্থানে পরবর্তী অভিযান পরিচালনা করা হলেও কোন পাচারকারী কিংবা তাদের সহযোগীকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে তাদেরকে শনাক্ত করার জন্য ওই ব্যাটালিয়নের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

শাহপরীরদ্বীপ হতে ইয়াবাসহ আটক ব্যক্তিকে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়ের করে টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তরের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এছাড়া উদ্ধারকৃত মালিকবিহীন ইয়াবাগুলো পরবর্তীতে উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তি ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করার জন্য ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন

ইয়াবাসহ মা-মেয়ে গ্রেফতার
ফরিদপুরে ইতালি প্রবাসীকে হত্যা
বগুড়ায় যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা
আগুনে পুড়ে ছাই কৃষকের বাড়ি
ঘরে গৃহবধূর লাশ রেখে পলাতক সবাই!
বেনাপোল সিমান্তে ইয়াবাসহ আটক-১
মাদকের জোয়ারে ভাসছে ভেড়ামারা (পর্ব -১)
গাঁজা না পেয়ে বন্ধুকে গলাকেটে হত্যা