ঢাকা
২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কুরবানীর ইতিহাস ও গুরুত্ব

কুরবান কুরবান প্রভুর রাহে কুরবান মনের পশু দাও কুরবান প্রভুর রাস্তায় দাও কুরবান। কুরআন হাকীমের আয়াত। ১) সূরা হজ্জ আয়াত ৩৪ ২) সূরা মায়েদা আয়াত ২৭ ৩) সূরা বাকারা আয়াত ১২৪ ৪) সূরা সফ আয়াত ১০০-১০৭ ৫) সূরা আনআম আয়াত ১৬২ ৬) সূরা কাউসার আয়াত ২ ৭) সূরা ইবরাহীম আয়াত ৩৭ তাফসীর দেখুন তাফহীমূল কুরআন, ইবনে কাসীর,মারেফুল কুরআন,নুরুল কুরআন। প্রিয়নবীর প্রিয়বাণী। ১) হযরত আবু হুরায়রা রাঃ হতে বর্ণিত তিনি বলেন রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন যার কুরবানী করার সমর্থন আছে,অথচ কুরবানী করে নাই সে যেন আমাদের ঈদগাহের নিকটেও না আসে।ইবনে মাজাহ। ২) হযরত উমর রাঃ হতে বর্ণিত যে, রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ৬২২ হিজরতের পর থেকে মদীনায় ১০ বছর কাল যাপন করেন। প্রতিবছর কুরবান করেছিলেন।তিরমিযী। ৩) হযরত উম্মে সালমা রাঃ হতে বর্ণিত, রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন যখন জিলহজ্ব মাসের প্রথম দশক আসে,আর তোমাদের কেউ কুরবানী করার ইচ্ছা করে।সে যেন নিজের কেশ ও চর্মের কোন কিছু স্পর্শ না করে,অর্থাৎ না কাটে।অপর এক বর্ণনায় আছে, যে ব্যক্তি জিলহজ্ব মাসের চাঁদ দেখবে এবং কুরবানী করার ইচ্ছা করে সে যেন নিজের চুল ও নখ না কাটে। ৪)হযরত নাফে রাঃ হতে বর্ণিত আছে,হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর রাঃ থেকে বর্ণিত। কুরবানীর দিন,ঈদের দিনের অর্থাৎ দশই জিলহজ্জের পরেও দুই দিন।ইমাম মালিক রহঃ বর্ণনা। গুরুত্বপূর্ণ তথ্যবলি।

১)কুরবান অর্থ উৎসর্গ করা,নৈকট্য অর্জন,রবের কাছাকাছি যাওয়া।পৃথিবীর শুরু থেকে যার পদযাত্রা শুরু…।

২)পৃথিবীতে প্রথম কুরবান দেন আদী পিতা আদম আঃ দুই সন্তান হাবিল আর কাবিল…।

৩) হাবিলের দুম্বা কবুল করেন কাবিলের সাকসবজি কবুল হয়নি…।

৪) আল্লাহ পাক বলেন মুত্তাকি ছাড়া কুরবান কবুল হবেনা…।

৫) আদম আঃ ঔরসে সন্তান জম্মগ্রহন কর ৪০ জোড়া আদম আঃ জীবিত অবস্থায় ৪০ হাজার সন্তান সন্তোতি দেখে যান,,, ৬) আদম আর হাওয়া আঃ ঘরে জোড়া সন্তান হতো শুধু মাত্র শীস আঃ একা জম্মগ্রহন হয়…।

৭) হাবিলের সাথে জম্ম হয় লাওযা আর কাবিলের সাথে জম্ম হয় আকলিমার,আগের ঘরের সাথে পরের ঘরের বিবাহ সম্পাদন হতো…।

৮) মুসলমানদের পিতা ইব্রাহিম আঃ জীবন উৎসর্গ করা কুরবান আল্লাহ পাক কবুল করেন..।

৯) ৮৬ বছর বয়সে বিবি হাজেরার ঘরে ইবরাহীম আঃ দোয়ার ফসল হযরত ইসমাঈল আঃ জম্ম…।

১০) ১০০ শত বছর বয়সে ইসমাঈল আঃ ছোট ভাই ইসহাকের জম্ম হয়…।

১১) প্রিয় খলিফাকে স্বপ্ন দেখান প্রিয়বস্তু কুরবান কর,তখন তিনি ৩ দিনে ৩ শত উট কুরবান দেন তারপর স্বপ্ন আবার দেখেন প্রিয়বস্তু কুরবান, আর নবীরদের স্বপ্ন হলো অহী বুঝতে পারলেন প্রিয়বস্তু হল এক মাত্র শুধু মাত্র প্রাণের সন্তান ইসমাঈল আঃ..।

১২) যেমন বাবা তেমন ছেলে ইবরাহীম বয়স ৯৯ আর ইসমাঈল আঃ বয়স ১৩ কার মত ৭ আল্লাহর রাস্তায় কুরবান…।

১৩) সবচেয়ে সফল ও পরীক্ষিত নবী, যার নামে সূরা পর্যন্ত আছে এবং মুসলমানদের জাতির পিতা ও সেমিটিক ধর্মের জনক ১৬৯ বছর হায়াতে ইবরাহীম আঃ সবচেয়ে বেশি পরীক্ষা দিয়েছেন…।

১৪) ইবরাহীম আঃ ঘর থেকে ১ লক্ষ নবী জম্মগ্রহন করে…।

১৫) হযরত মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জম্মের সময় ৫৭০ সালে দাদা আব্দুল মুত্তালিব ২০০ শত উট উৎসর্গ করেন,আল্লাহু আকবার…।

১৬) মদীনায় হিজরত ৬২২ সালে কুরবানের বিধান নাযিল হয় হযরত মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উপর…।

১৭)দিতীয় খলিফা উমর রাঃ বলেন রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদীনায় ১০ বছর হায়াতে তিনি ১০ বছর কুরবান দিয়েছেন।

১৮) রাসূল সাঃ ১০ বছরের খাদেম আনাস রাঃ বলেন প্রতিবছর দুটা ভেড়া রাসূল সাঃ আর দুটো ভেড়া আমি কুরবা করতাম,,, ১৯) রাসূল সাঃ বিদায় হজ্জে ১০০ টি উট কুরবান করেন, নিজ হাতে ৬৩ টা আর নিজ জামাতা আলী রাঃ হাতে বাকি ৩৭ টা কুরবান করান…।

২০) আব্বাস রাঃ বলেন রাসূল সাঃ কুরবানের এক তৃতীয়াংশ আত্মীয়, গরীব দুঃখীর মাঝে বন্টন করে দিতেন…।

২১) কুরবাব হযরত আদম আঃ থেকে শুরু ইবরাহীম আঃ থেকে পূর্ণাঙ্গরুপ লাভ করে আর শেষ রাসূল হযরত মুহাম্মদ সাঃ সারা বিশ্বময় ছড়িয়ে দেন…।

২২) কুরবানের অসংখ্য ফযিলত গুরুত্ব তাৎপর্য জানার মাধ্যমে আমদের কুরবান যেন পরিশুদ্ধ পায়… ।

২৩) ঈমানের দাবী যদি কুরবানী হয় সে দাবী পুরনে আমি তৈরি থাকি যেন ওগো দয়াময় আমার প্রভু দয়াময়।

লেখক: হাফেজ মাওলানা নুর হোছাইন

আরও পড়ুন

জুমার দিনের ফজিলত ও বিশেষ আমল
যাদের উপর কুরবানি ওয়াজিব এবং কুরবানি না করার শাস্তি
ঈদুল আজহা ২১ জুলাই
জিলহজ মাসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য
সৌদিতে ঈদুল আজহা ২০ জুলাই
ধৈর্যশীলদের প্রতি আল্লাহর রহমত
পৃথিবী মমতাহীন হয়ে যেন না যায়
দুবাইয়ে ইসলাম গ্রহণ করলেন দুই হাজারের বেশি প্রবাসী